খাগড়াছড়ি, , মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮

উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে নৌকা প্রতীকে ভোট চাইলেন কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

প্রকাশ: ২০১৮-০৫-২৬ ২০:১৫:০৯ || আপডেট: ২০১৮-০৫-২৬ ২০:১৫:০৯

দিদারুল আলম,গুইমারা: পার্বত্য চট্টগ্রাম উপজাতীয় শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফের্স চেয়ারম্যান ও সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেছেন, পার্বত্য এলাকার মানুষ শান্তি প্রিয়, আর সরকারও পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছে। শনিবার দুপুরে খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার নবসৃষ্ট বড়পিলাক বাজারের উদ্ভোধন কালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে পাহাড়ে উন্নয়নের জোয়ার উঠেছে। আর বিএনপি ক্ষমতায় থাকলে পাহাড়ে লাশের মিছিল দীর্ঘ হয়। তাই উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে সকলকে এক সাথে কাজ করার আহবান জানিয়ে, আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে আবারও ভোট চাইলেন সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।
বড়পিলাক বাজার কমিটির আহবায়ক মংশে চৌধুরী’র সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজুরী চোধুরী, সিন্দুকছড়ি জোন অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল রুবায়েত মাহমুদ হাসিব, গুইমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়া, উপজেলা আওয়ামীলীগের  সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক মেমং মারমা, হাফছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান চাইথোয়াই চৌধুরী, বাজার পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব আইয়ুব আলী প্রমুখ। এছাড়াও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।
এসময়ে গুইমারা সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মেমং মার্মা বলেন অসাম্প্রদায়িক  চেতনায় বিশ্বাসী আওয়ামীলীগ সরকার। সারা দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বন্ধন অটুট রাখাই তার প্রধান লক্ষ। সে হিসেবে ৫৬০ মডেল মসজিদ, ৫৬০ টি দারুল আরকাম মাদ্রাসা সহ কওমী মাদ্রাসার সুকৃতি প্রদান করেছে।অন্যন্য ধর্মাবলম্বীদের জন্য মন্দির কেয়াংসহ ধর্মিয় উপসনালয়ের কাজ করে যাচ্চেন। যারা আওয়ামীলীগ সরকারকে ধর্ম বিদ্বেষী বলে এটা কতটুকু সঠিক তা জাতি বিচার করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
বাজার পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব আইয়ুব আলী জানান, গুইমারা উপজেলার মডেল হিসেবে বড়পিলাক বাজারের কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। সরকার জালিয়াপাড়া হইতে মহালছড়ি সড়কের উন্নয়ন কার্ক্রম হাতে নিয়েছে। ইতিমধ্যে কাজের অনেকটা শেষ হয়েছে। ১৬ আনা কাজ শেষ হলে রাঙ্গামাটির সাথে যাতায়াত ব্যাবস্থা সহজ হয়ে যাবে। তখন বড়পিলাক জালিয়াপাড়া হবে এজেলার অন্যতম প্রান কেন্দ্র।সে লক্ষে সরকার এবং আমরা কাজ করে যাচ্চি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

পূর্বের সংবাদ

December 2018
M T W T F S S
« Nov    
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় প্রথম পাতা

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় শেষ পাতা

বিজ্ঞাপন