খাগড়াছড়ি, , সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

শেখ হাসিনা পার্বত্য অঞ্চলের ভাষাভাষীদের উন্নয়নে কাজ করছে- প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং

প্রকাশ: ২০১৮-০৯-১৫ ২৩:৫৩:৫৭ || আপডেট: ২০১৮-০৯-১৫ ২৩:৫৩:৫৭

শংকর চৌধুরী, খাগড়াছড়ি॥ পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে পাহাড়ি, বাঙ্গালি,হিন্দু, মুসলিম বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সকল সম্প্রদায়ের মানুষ মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পরেছিল। জীবন বাজি রেখে স্বাধীনতা যুদ্ধে নেমে ছিল তারা ধর্ম নিরপেক্ষ। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল, অসাম্প্রদায়ি চিন্তা চেতনার ধর্ম নিরপেক্ষ হবে সোনার বাংলাদেশ। যে রাস্ট্রে সকল সম্প্রদায় নিজ নিজ ধর্মের ভাষা কৃষ্টি সংস্কৃতি কালচার রিতি নিতি পালন করে স্ব-স্ব জাতি হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিয়ে স্বাধীন ভাবে বসবাস করবে ।

শনিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মারমা উন্নয়ন সংসদ এর কমিউনিটি সেন্টার উদ্বোধন শেষে খাগড়াছড়ি পৌর টাউন হলে কেন্দ্রীয় সম্মেলন ও ত্রি-বার্ষিক সাধারণ সভা ২০১৮ইং এর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যার প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের পার্বত্য অঞ্চলের সকল ভাষাভাষীদের উন্নয়নে কাজ করছে সরকার। কোন জাতিসত্তাকে হারিয়ে যেতে দিব না, অসাম্প্রদায়িক এ দেশে সকল জনগোষ্ঠী স্ব-স্ব ভাষা নিয়ে গর্বের সাথে বেঁচে থাকবে। ভাষা ও সংস্কৃতি রক্ষায় প্রয়োজনে পাশে আছে পার্বত্য মন্ত্রণালয়। ক্ষুদ্র-ক্ষুদ্র জাতিস্বত্তা গুলোর ভাষা-সংস্কৃতি রক্ষায় উদ্যোগ গ্রহন করে সকল সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠীর ভাষা উচ্চারণের ক্ষেত্রে প্রয়োজন প্রশিক্ষণ। পাহাড়ের মানুষ বোঝা নয়, সম্পদ। আর সে সম্পদ হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে। তবেই বোঝা সম্পদে রূপান্তরিত হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।

পার্বত্য জেলা বান্দরবান থেকে পাচঁ বারে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়ত্বরত বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি আরো বলেন, আমাকে যদি কেউ বলে আমার পরিচয় কি ? মারমা ছাড়া কিছুই বলবো না। যদি বলে দেশ কোনটি বাংলাদেশ ছাড়া কিছুই বলবো না। যদি বলে পছন্দের রঙ কি ? লাল সবুজের কথা বলবো। আমাকে যদি বলা হয় কোন মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী আমি বলবো পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী তখন যদি কেউ বলে আমার পরিচয় কি ? আমি বলবো পার্বত্য এলাকায় যতগুলো সম্প্রদায় আছে সকলের প্রতিনিধিত্ব করি, এখানকার সকলই আমার মানুুষ। আমার আত্মার আত্বীয়। মারমা সম্প্রদায়ের অনুষ্টানে আসছি বলে আমি সুধু মারমাদের নয়, আমি সকলের সকলে আমার। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীন বাংলাদেশ পেয়েছি। একুশে ফেব্রুয়ারী  আমাদের গর্ব। লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে সারাদেশে যতগুলো সম্প্রদায় আছে আমরা স্ব-স্ব মাতৃ ভাষায় কথা বলতে পারছি এতেই আমি ধন্য। সারা বিশ্ব আজ আন্তরজাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করে গর্বে বুক ভরে যায়। এটি আমাদের সকলের জন্যে গর্বে। সবাইকে সকল ভেদাভেদ ভুলে এই দেশ দেশের প্রতিটি সম্প্রদায়ের মানুষকে ভালো বেসে আগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবারও উন্নয়নের প্রতিক নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী ও বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য আহবান জানান বক্তারা। 

মারমা উন্নয়ন সংসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি চাইথোঅং মারমার সভাপতিত্বে অনুষ্টিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজাতীয় শরণার্থী বিষয়ক টাক্সফোর্স চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী মর্যাদা) কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত সচিব ও ভাইস চেয়ারম্যান তরুণ কান্তি ঘোষ, খাগড়াছড়ি রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হামিদুল হক, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম, নবাগত পুলিশ সুপার মোহা: আহমার উজ্জামান, খাগড়াছড়ির মং সার্কেল সাচিং প্রু চৌধুরী, খাগড়াছড়ি পৌর সভার মেয়র রফিকুল আলমসহ নেতবৃৃন্দরা এতে অংশ নেয়। অংশ নেন মারমা ইতিহাস ও সংস্কৃতি গ্রন্থের লেখক, প্রফেসর মংসানু চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ন-সচিব উক্যজেন।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ড. সুধীন কুমার চাকমা, পশ্চিম ত্রিপুরার এডিএম উসাজেন মগ এবং ম্বাগত বক্তব্য রাখেন, মংপ্রু চৌধুরী ও সঞ্চালনায় খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ’র জনসংযোগ কর্মকর্তা চিংলামং চৌধুরী।

এসময় মারমা সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী নৃত্য উপভোগ করেন এবং ‘মারমা ইতিহাস ও সংস্কৃতি’ নামক একটি গ্রস্থের মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধান ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ।

এর আগে প্রধান অতিথি খাগড়াছড়ি কেন্দ্রীয় শাহী জামে মসজিদ এর ২য় ও ৩য় তলার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ও নারিকেল বাগানস্থ জেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হন, প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

পূর্বের সংবাদ

September 2018
M T W T F S S
« Aug    
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় প্রথম পাতা

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় শেষ পাতা

বিজ্ঞাপন

error: Content is protected !!