খাগড়াছড়ি, , সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮

বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে ধারণ করেই উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ- সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-২৯ ২১:০৮:২৩ || আপডেট: ২০১৮-০৭-২৯ ২১:০৮:২৩

                     আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

আলোকিত ডেস্ক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও চেতনাকে ধারণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। সারা বিশ্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল।

আগামী ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দেয়া এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন।

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে সেতুমন্ত্রী বলেন, বাঙালি জাতি কৃতজ্ঞচিত্তে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করবে এ দেশের জনগণ।

সেই স্বপ্নময় ভবিষ্যতের বিনির্মাণের জন্য জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বিশ্বের ইতিহাসে নির্মমতার এক কালো অধ্যায়। সেদিন শুধু সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধুই নয়, ঘাতকদের নির্মম বুলেটে প্রাণ হারান বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন শেখ কামাল, মুক্তিযোদ্ধা লেফটেন্যান্ট শেখ জামাল ও শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল।

‘পৃথিবীর এই নৃশংসতম হত্যাকা- থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর অনুজ শেখ আবু নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছেলে আরিফ, মেয়ে বেবি ও নাতি সুকান্ত সেরনিয়াবাত বাবু, বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবনেতা শেখ ফজলুল হক মণি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মণি এবং আবদুল নাঈম খান রিন্টু ও কর্নেল জামিল।

তবে দেশের বাইরে অবস্থান করার কারণে সেদিন প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।’

বিবৃতিতে সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, ঘাতকরা শুধু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যাই করেনি, হত্যা করেছিল বাঙালি জাতির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, অগ্রযাত্রা, সমৃদ্ধি ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নকে। ৩০ লাখ শহীদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশকে স্বাধীন করে সোনার বাংলা বিনির্মাণের যে স্বপ্ন দেখেছিলেন ১৫ আগস্ট খুনিদের বুলেট বাঙালির সেই স্বপ্নকে হত্যা করে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বঙ্গবন্ধু শত বছরের একটি পরাধীন জাতিকে স্বাধীনতা দিয়ে বিশ্বের দরবারে বাঙালিদের বীরের জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার মাত্র তিন বছর সাত মাসের মধ্যে দেশি ও বিদেশি চক্রান্তের মাধ্যমে ঘাতকরা তাকে সপরিবারে হত্যা করে বাঙালি জাতির কপালে কলঙ্কের তিলক পরিয়ে দেয়।

‘খুনিরা শুধু বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি, বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রের অন্যতম সহযোগী জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার প্রক্রিয়া বন্ধ করতে ঘৃণ্য ইনডেমনিটি আইন জারি করে।’

তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে দীর্ঘ ২১ বছর জাতি হিসেবে আমরা বিচারহীনতার কলঙ্ককের বোঝা বহন করেছি। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত সরকার বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে নিয়মতান্ত্রিক বিচারিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০১০ সালে ঘাতকদের ফাঁসির রায় কার্যকর করার মাধ্যমে বাঙালি জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেন।

বিবৃতিতে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের অনেকেই এখনও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পালিয়ে থেকে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। শেখ হাসিনার সরকার খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে আদালতের রায় কার্যকর করার প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছে।

‘হত্যাকারীরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে সক্ষম হলেও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও চেতনাকে কখনও হত্যা করতে পারেনি। হত্যা করতে পারেনি বঙ্গবন্ধুর লালিত স্বপ্নকে। বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু জনগণের যে মুক্তির স্বপ্ন দেখেছিলেন তারই কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ আজ সেই লক্ষ্যেই এগিয়ে যাচ্ছে।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর ক্ষুধা ও দারি‌দ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা বিনির্মাণের স্বপ্ন দেখেছিলেন। বঙ্গবন্ধুকন্যা আজ ক্ষুধা ও দারিদ্র্যকে জয় করে বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে একটি উন্নয়নশীল, মর্যাদাবান জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।

‘বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, বাংলার মাটিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবেই। শেখ হাসিনা সব ষড়যন্ত্রকে উপেক্ষা করে নানা প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়েও ঘৃণ্য যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের সম্মুখীন করেছেন,’ বলেন সেতুমন্ত্রী।

বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, আজ বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তার আদর্শ, চেতনা আর রক্তের উত্তরাধিকার শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা রয়েছেন।

বিবৃতিতে তিনি ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী, জাতীয় শোক দিবস যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে পালনের জন্য দেশবাসী, আওয়ামী লীগ ও তার সব সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং সংস্থাগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

একইসঙ্গে আওয়ামী লীগের সব জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন, ওয়ার্ডসহ সব শাখার নেতৃবৃন্দকে দিবসটিকে স্মরণ ও পালন করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

পূর্বের সংবাদ

October 2018
M T W T F S S
« Sep    
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় প্রথম পাতা

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় শেষ পাতা

বিজ্ঞাপন

error: Content is protected !!