খাগড়াছড়ি, , সোমবার, ৬ এপ্রিল ২০২০

নাইক্ষ্যংছড়ির আলিক্ষ্যং সড়কের উন্নয়নে পাল্টে যাবে ১০ গ্রামের জীবন-মান মহাখুশি শিক্ষার্থী ছাড়াও উপজাতিয় পল্লীর বৃদ্ধ ও নারীরা

প্রকাশ: ২০২০-০২-২২ ২২:০৬:৪১ || আপডেট: ২০২০-০২-২২ ২২:০৬:৪৭

আবদুর রশিদ, নাইক্ষ্যংছড়ি: পার্বত্য বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের আলিক্ষ্যং মৌজার এক কিলোমিটারের একটি সড়কের উন্নয়নে পাল্টে যাবে ১০ গ্রামের জীবন-মান। চির অবহেলিত নামে পরিচিত এসব এলাকার মানুষ আধুনিক জীবনে পা দেবেন আর সুবিধা পাবে শিক্ষা-চিকিৎসা সহ সব ধরণের প্রয়োজনীয় বিষয়ের। বিশেষ করে এ সড়কটির উন্নয়ন কাজ শুরু করায় মহাখূশি বাঙ্গালীর পাশাপাশি উপজাতিয় পল্লীর অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী এবং আবাল-বৃদ্ধ-বণিতাও। বাদুর ঝিরি চাক পাড়ার বাসিন্দা ম্রাচিং চাক,চড়ই মরুং পাড়ার বাসিন্দা লাংকংমুরুং,ফথইহেডম্যান পাড়ার হেড়ম্যান তমপ্রে মুরুং সহ অনেকে জানান,আজ স্বাধীনতার ৪৮ বছর পেরিয়ে ডিজিটাল যুগে পা ফেলেছে এখানকার মানুষ। কিন্তু এ সড়কের শেষ প্রান্তের মানুষ গুলো এ যুগ দেখার আশা ছেড়ে দিয়েছিলো বার বার। এরই মধ্যে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান অধ্যাপক শফিউল্লাহর সু-নজর পড়ে এ অবহেলিত এলাকায়। তিনি বরাদ্ধ পেতে উপজেলা পিআইকে বললে আজ কাজটির প্রক্রিয়া শুরু হয়। তারই ধারাবাহিকতায় ৬২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য সড়কটি শুরু করেন গত সপ্তাহে।

বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলম কোম্পানী বলেন, জেলার মাননীয় মন্ত্রী বীর বাহাদুরের বদন্যতায় উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যাপক মো: শফিউল্লাহর চেষ্ঠায় এ সড়কটির কাজ শুরু হলো মাত্র। সড়কটির উন্নয়ন কাজ শেষ হতে হয়তো ১ মাস লাগবে। তখন তার এ এলাকার ১০ গ্রামের ২০/৩০ হাজার মানুষের চেহারা পাল্টে যাবে। জীবন-মান পরিবর্তন হয়ে উচ্চ শিক্ষা অর্জন সহ সব ধরণের কাঝে এগিয়ে যাবে। তিনি বলেন, সুবিধাভোগী গ্রাম গুলো হলো:পথৈ মুরুং পাড়া,বাদুর ঝিরি পাড়া, মংচালা চাক পাড়া,সাপঝিরি পাড়া,চাকমার ঝিরি পাড়া,লাম লাই মুরুং পাড়া, তুতুকখালী, চা তৈ পাড়া, বৈদ্য পাড়া ও মিজ্জিরি পাড়া। এসব গ্রাম এতো দিন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন প্রায়। এখন সরাসরি তাদের গ্রামে যাতায়াত করতে পারবে মানুষ। সব মিলে এ সড়কটি এখানকার মানুষের জন্যে আর্শিবাদ স্বরূপ। তবে বাধাঁ সৃষ্টি করতে তৎপর উপজাতীয় ্এবং বাঙ্গালী কিছু চাদাবাজ। তারা বিভিন্নভাবে চাদাঁবাজরা সমস্যা সৃষ্টির চেষ্ঠা করছে কাজের গতি যেন ব্যাহত হয়। তিনি আশা প্রকাশ করেন তার এলাকার উন্নয়নে কোন চাদাঁবাজ ঠাই পাবে না। তিনি সজাগ আছেন।

উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা মো: সোহেল রানা বলেন,দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে এ সড়কটি নির্মিত হচ্ছে। সড়কটির কাজ সবে মাত্র শুরু হয়েছে। শেষ হতে সময় লাগবে আরো বেশ’ক দিন। ৬২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সড়কটি নির্মিত হবে। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কাজ গুলো র্সাবক্ষণিক তার অফিসের সাথে যোগাযোগ করেই করছেন। তারা অফিসের নিয়ম মেনেই বালু,ইট সংগ্রহ করেছেন। তার পরেও কোন সময় অনিয়ম করলেও রেহাই দেবেন না তাদের। তিনি কখনো ছাড় দেবেন না সংশ্লিষ্ঠদের।

উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো: শফিউল্লাহ শফিউল্লাহ বলেন,মাননীয় প্রধান মন্ত্রী এবং জেলার মন্ত্রী পাহাড়ের উন্নয়নের রূপকার বীর বাহাদুর উশৈসিং এর নির্দেশে সব কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। আর এ সড়কটিও তার একটি। এখানে অনিয়ম,দূনীর্তি কেউ করার সাহস করে না। করবেও না। আওয়ামী লীগ কাজ করে জনগনের ভাগ্য উন্নয়নের জন্যে। শিক্ষার জন্যে। দেশের জন্যে। এ আলীক্ষং সড়কটির উন্নয়ন হলে সড়কের অপর প্রান্তের ১০/১২ গ্রামের অর্ধলক্ষ মানুষ নাগরিক সুবিধা পাবে। এই হলো আওয়ামী লীগ। এই হলো বীর বাহাদুর।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

পূর্বের সংবাদ

April 2020
M T W T F S S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031  

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় শেষ পাতা

বিজ্ঞাপন