খাগড়াছড়ি, , বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮

ঢাকার বুকে পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্স, আগামীকাল রবিবার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ২০১৮-১০-২৭ ১৫:৪৭:২৫ || আপডেট: ২০১৮-১০-২৭ ১৫:৫৬:৫৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের সঙ্গে সমতলের মানুষের পারস্পরিক সাংস্কৃতিক আদান-প্রদান ও সম্প্রীতির মেলবন্ধন তৈরির উদ্দেশ্যে নির্মিত ‘শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্স’ উদ্বোধন হতে যাচ্ছে আজ রোববার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বিকেল ৪টায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ঢাকার ৩৩ বেইলি রোডে নির্মিত এই কমপ্লেক্স উদ্বোধন করবেন। মঙ্গলবার পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক মো. আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এবং স্বাগত বক্তব্য রাখবেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নূরুল আমিন।

জানা গেছে, ১৯৪ কোটি টাকা ব্যয়ে পার্বত্য ঐতিহ্যমতি ‘শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্স’ নামে নান্দনিক এই ভবন নির্মিত হয়েছে। ‘শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্স’ শীর্ষক প্রকল্পটি সরকারের মধ্যমেয়াদী বাজেটের অন্তর্ভুক্ত, যা ২০১৬ সালের ৯ ফেব্রয়ারি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) অনুমোদন হয়।

কমপ্লেক্সটিতে একটি মাল্টিপারপাস হল, ডরমেটরি, প্রশাসনিক ভবন, মিউজিয়াম, লাইব্রেরি ছাড়াও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যানের বাসভবন নির্মাণ করা হয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষের সঙ্গে সমতলের মানুষের পারস্পরিক সাংস্কৃতিক আদান-প্রদান, সহযোগিতা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মেলবন্ধন তৈরিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে এই কমপ্লেক্স। এছাড়া স্থাপনাটি পার্বত্য অঞ্চলের বিভিন্ন নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, সামাজিক রীতি-নীতি, ভাষা, ধর্ম ও আচরণগত স্বতন্ত্রতা সম্পর্কে বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষকে পরিচিত করে তুলবে। কমপ্লেক্সটি পর্যটকদের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রামের ইতিহাস-ঐতিহ্য ও কৃষ্টি-সংস্কৃতির সমন্বয়ে একটি দৃষ্টিনন্দন শৈল্পিক স্থাপনা হিসেবেও বিবেচিত হবে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

পূর্বের সংবাদ

November 2018
M T W T F S S
« Oct    
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় প্রথম পাতা

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় শেষ পাতা

বিজ্ঞাপন

error: Content is protected !!