খাগড়াছড়ি, , সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮

খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে বিরল দৃষ্টান্ত: রাষ্ট্রপতি

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-২২ ২২:০৩:৪৬ || আপডেট: ২০১৮-০৭-২২ ২২:০৪:৩৫

আলোকিত ডেস্ক: বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫৭ বছর উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ছবি: পিআইডি
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, বর্তমান সরকারের নিরলস প্রচেষ্টায় খাদ্য শস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। বর্তমান সরকারের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে কৃষি ও কৃষকের উন্নয়ন অপরিহার্য।

রোববার বিকালে ময়মনসিংহে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাফল্য ও গৌরবের ৫৭ বছর উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন ও স্থিতিশীলতা সংরক্ষণে কৃষি মূখ্য ভূমিকা রেখে চলেছে। কৃষি ভর্তুকি, কৃষকদের অনুকূলে সার, সেচ, বীজ, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বাবদ ব্যাপক ভিত্তিতে সরকারের কৃষি সহায়তার পাশাপাশি কৃষি বিজ্ঞানী ও কৃষিবিদদের অক্লান্ত পরিশ্রমে বাংলাদেশে কৃষি উৎপাদনে অভাবনীয় সাফল্য এসেছে।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আলী আকবরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কৃষিবিদ ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি, কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান এমপি, সাবেক ভিসি ড. এমএ সাত্তার ম-ল, কৃষিবিদ বদিউজ্জামান বাদশা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এ সময় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা, কৃষিবিদসহ বিশিষ্টজনরা উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, ‘আমার বাড়ি কিশোরগঞ্জের হাওড় অঞ্চলে। হাওর ও চর উন্নয়ন ইন্সটিটিউট প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করায় আমি খুশি হয়েছি। হাওর ও চর উন্নয়ন ইন্সটিটিউট অবহেলিত হাওর অঞ্চলের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস।’

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ কৃষির সব মৌলিক ও প্রায়োগিক বিষয়ে শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রমের মাধ্যমে দক্ষ কৃষিবিদ তৈরির পাশাপাশি কৃষি প্রযুক্তি উদ্ভাবন ও সম্প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের জন্য বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাইগণকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

অনুষ্ঠান শেষে অতিথিদের সঙ্গে নিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু চত্বরে হাওড় ও চর উন্নয়ন ইন্সটিটিউটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

এদিকে রাষ্ট্রপতির উপস্থিতিতে ৫৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান হওয়ায় দারুণ খুশি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী অ্যালামনাইরা। ৫৭ বছর উদযাপন অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৪ হাজার ৩শ’ গ্রাজুয়েট ও তাদের পরিবারের সদস্যরা অংশ নেন।

প্যান্ডেল পুড়ে যাওয়ায় বাকৃবি শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

প্রসঙ্গত, বাকৃবির ৫৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের প্যান্ডেল শনিবার রাতে ভয়াবহ অগ্নিকা- ঘটে। ফলে রোববার বাকৃবি শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

পূর্বের সংবাদ

October 2018
M T W T F S S
« Sep    
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় প্রথম পাতা

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় শেষ পাতা

বিজ্ঞাপন

error: Content is protected !!