খাগড়াছড়ি, , বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯

খাগড়াছড়িতে সম্ভাবনাময়ী ঝাড়ু ফুল; সরকারী সহযোগিতায় অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়ার স্বপ্ন

প্রকাশ: ২০১৯-০৩-০৪ ১৭:৪০:০১ || আপডেট: ২০১৯-০৩-০৪ ১৭:৪০:০৬

মোঃ শরিফুল ইসলাম ভূঁইয়া আসাদ, খাগড়াছড়ি: পার্বত্য চট্রগ্রামে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী গুলো বর্ষাবিহীন শীত মৌসুমে আর্শীবাদ স্বরূপ পাহাড়ে প্রাকৃতিক ভাবে জন্ম নেয়া ঝাড়ু ফুল বা উলু ফুল বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছে। খাগড়াছড়ির পাহাড়েও প্রাকৃতিকভাবে উৎপন্ন হয় ঝাড়ু ফুল, আর সেই ঝাড়– ফুলই সম্ভাবনা দেখাচ্ছে স্থানীয়দের। উলু ফুল দিয়ে তৈরি খাগড়াছড়ির ঝাড়ু সারাদেশে বিক্রির পাশাপাশি বর্তমানে দেশের বাইরেও রফতানি করা হচ্ছে। সরকারি সহযোগিতা পেলে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন এই ব্যবসার সাথে জড়িত সংশ্লিষ্টরা।

পাহাড় আর অরণ্য থেকে এই ফুল সংগ্রহ করে এখানকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর নারী-পুরুষ। পরে তা আঁটি বেঁধে প্রতিটি আঁটি ১৫-১৮ টাকায় সাপ্তাহিক হাট-বাজারে বিক্রি করেন তারা। প্রাত্যহিক কাজে ব্যবহারযোগ্য বলেই এই উলু ফুল কিনতে ভীড় জমান ক্রেতারা।

এছাড়া দেশ-বিদেশে পাহাড়ের এই ঝাড়–র চাহিদা বাড়ায় মৌসুমী ব্যবসায়ীরাও হাট-বাজার এবং পাহাড় থেকে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে সংগ্রহ করেন উলু ফুল। পরে তা শুকিয়ে তৈরি করা হয় ফুলের ঝাড়ু। আর এতে করে সৃষ্টি হয়েছে স্থানীয় বেকারদের কর্মসংস্থানের সুযোগ।

বেশ ক’বছর ধরেই খাগড়াছড়ি থেকে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করে আসছেন এই ঝাড় ফুল। একই সঙ্গে রফতানি হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যেও। এখানকার প্রাকৃতিকভাবে উৎপন্ন ঝাড়ু ফুল মানে ভালো এবং এতে খরচও হয় কম। তাই দিন দিন চাহিদাও বাড়ছে খাগড়াছড়ির ঝাড়–র। আর লাভজনক হওয়ায় এ ব্যবসা আগ্রহ বাড়ছে ব্যবসায়ীদের। এই খাতে সরকারিভাবে ঋণ দেয়া হলে স্থানীয় বেকার যুবকরাও আত্মনির্ভরশীল হতে পারবে বলে আশা তাদের।

উলু ফুলের ব্যবসায়িক চাহিদা বাড়ায় প্রতিবছর এই খাত থেকে লাখ লাখ টাকা রাজস্ব পাচ্ছে সরকার। পাহাড়ে এর চাষাবাদ করা গেলে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি এ ব্যবসার সাথে সংশ্লিষ্টরা অর্থনৈতিকভাবে যেমনি লাভবান হবেন তেমনি সরকারি রাজস্ব আদায়ও বাড়বে বলে জানিয়েছেন খাগড়াছড়ি বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

পূর্বের সংবাদ

August 2019
M T W T F S S
« Jul    
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় শেষ পাতা

বিজ্ঞাপন