খাগড়াছড়ি, , রোববার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

খাগড়াছড়িতে অস্ত্রসহ আত্মসমর্পণ করলেন ইউপিডিএফ নেতা

প্রকাশ: ২০১৮-১২-০৬ ১৮:১২:৩২ || আপডেট: ২০১৮-১২-০৬ ১৮:১২:৩২

নিজস্ব প্রতিনিধি: খাগড়াছড়িতে বিদেশি পিস্তল ও গুলিসহ ইউপিডিএফ’র বিচার ও সাংগঠনিক পরিচালক আনন্দ চাকমা সেনাবাহিনীর কাছে অস্ত্র সমর্পণ করেছে।

বুধবার রাতে মহালছড়ি সেনা জোনের অধিনায়কের কাছে একটি ইউএস-এ তৈরি পিস্তল, ম্যাগজিন, তিন রাউন্ড গুলিসহ আনন্দ চাকমা অস্ত্র সমর্পণ করেন। সে খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা উপজেলার মনরঞ্জন চাকমার ছেলে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সাংবাদিকদের আনন্দ চাকমা জানান, আদর্শহীন ইউপিডিএফ’র খুন, গুম, অপহরণ, চাঁদাবাজির কারণে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আশায় অস্ত্র সমর্পণ করেছেন। সরকার ঘোষণা দিলে অনেক ইউপিডিএফ’র নেতাকর্মী স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার জন্য অপেক্ষা করছে।

আনন্দ চাকমা জানান, ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপের কাছে একে-৪৭, এসএমজি, চাইনিজ রাইফেল, এলএমজি, একাশি ও এম-১৬ এর মতো বিপুল ভারী আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে।

রাঙামাটি জেলার নানিয়াচর সার্কেলের বিচার ও সাংগঠনিক শাখার পরিচালক আনন্দ চাকমা জানান, শান্তিবাহিনী, জনসংহতি সমিতি ও গত চার বছর ইউপিডিএফ (প্রসীত) হয়ে কাজ করেছে। জীবনের ৩০ বছর আমি জঙ্গলে জঙ্গলে ঘুরে জীবন যাপন করেছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় পাহাড়ি জনগোষ্ঠির অধিকার আদায় ও তাদের উন্নতির যে লক্ষ্য নিয়ে যুবক বয়সে এই আন্দোলনের সাথে যুক্ত হয়েছিলাম তা থেকে ইউপিডিএফ সম্পূর্ণভাবে বিচ্যুত। ইউপিডিএফ’র কোন নীতি ও আদর্শ নেই। তারা সকলেই রক্তের নেশা ও ক্ষমতার মোহে পড়ে আছে।

চাঁদাবাজি, মানুষকে হয়রানী আর ভয়ভীতি ও অন্যায়-অত্যাচার করে সকলে নিজেদের আখের গুছাতে ব্যস্ত। গুম, খুন, হত্যা ও অপহরণই বর্তমানে তাদের কাজ। ইউপিডিএফ(প্রসীত) গ্রুপের কাছে স্বজাতীয় কোন ভাই-বোনও নিরাপদ নয়। আমারও স্ত্রী, এক ছেলে ও ডিগ্রি ৩য় বর্ষে পড়ুয়া একটি মেয়ে রয়েছে। এ কারণে অনেক ভেবে-চিন্তে অন্যায়ের পথ ছেড়ে সুস্থ্য, স্বাভাবিক ও শান্তিপূর্ণ জীবনে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমার মত অনেকেই স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে চায়। কিন্তু ইউপিডিএফ হত্যার ভয় দেখাচ্ছে। এ জন্য তারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারছে না।

আনন্দ চাকমা জানান, জঙ্গলের অস্বাভাবিক জীবন ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনের ফিরে আসায় পরিবারের সদস্যরা আনন্দিত। আমার এক ছেলে সরকারি চাকরি করছে। আমার মেয়ে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছে। আমিও এই স্বাধীন দেশের উন্নয়নের ধারায় সম্পৃক্ত করে আমার বাকী জীবনটা একজন আদর্শ নাগরিক হিসেবে সুখে-শান্তিতে অতিবাহিত করতে চাই।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

পূর্বের সংবাদ

February 2019
M T W T F S S
« Jan    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728  

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় প্রথম পাতা

এই সপ্তাহের আলোকিত পাহাড় শেষ পাতা

বিজ্ঞাপন